fbpx
শিরোনাম:
নবীনগরে শিল্পপতি রিপন মুন্সির স্বপ্নের ফার্মে ঘুরে দাঁড়ালো ৫০০ অসহায় পরিবার নবীনগরে বিএনপির অপপ্রচার ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্পৃতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত। নবীনগরে ব্যারিষ্টার জাকির আহাম্মদ কলেজে জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের সংবর্ধনা ও পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত। বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেবে রাশিয়া বিয়ের পরদিন মেঘনায় ভাসছিল যুবকের মরদেহ প্রেমের টানে এবার জয়পুরহাটে শ্রীলঙ্কান যুবক ইডেনের বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেত্রীরা কৃষিমন্ত্রীর বাসায় এবার গোপনে নয়, আয়োজন করে বিয়ে করবেন শাকিব ৩ স্ত্রী থাকার পরও কিশোরীকে বিয়ের প্রস্তাব, রাজি না হওয়ায় অপহরণ ইভ্যালির সার্ভার খুলছে শিগগিরই, অনলাইনে চালু হবে কেনাবেচা
বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০১:১৬ পূর্বাহ্ন

প্রেমিকাকে শিকল দিয়ে পেটালেন প্রেমিক!

প্রতিনিধির / ১৪২ বার
আপডেট : সোমবার, ২৯ আগস্ট, ২০২২
প্রেমিকাকে শিকল দিয়ে পেটালেন প্রেমিক
প্রেমিকাকে শিকল দিয়ে পেটালেন প্রেমিক

নরসিংদীর পলাশে এক কিশোরীকে লোহার শিকল দিয়ে পেটালেন জাহাঙ্গীর মৃধা (২০) নামে এক বখাটে। জানা গেছে, জাহাঙ্গীর ওই কিশোরীর প্রেমিক। রোববার (২৮ আগস্ট) দুপুরে উপজেলার ঘোড়াশাল পৌর এলাকার খানেপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

পরে এলাকাবাসী অজ্ঞান অবস্থায় ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। বর্তমানে ওই কিশোরী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ভুক্তভোগী কিশোরীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দেড় বছর আগে ঘোড়াশাল পৌর এলাকার খানেপুর গ্রামের শরফত আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর মৃধার সঙ্গে রঙ নম্বরের মাধ্যমে পরিচয় হয় তাদের। এরপর ওই পরিচয় থেকে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন তারা। একপর্যায়ে জাহাঙ্গীর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্কও গড়ে তোলেন। এভাবে তাদের মধ্যে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক হয়। একপর্যায়ে ভুক্তভোগী ওই কিশোরীকে বিয়ে করার কথা বললে জাহাঙ্গীর তাতে রাজি হয় না। পাশাপাশি ওই কিশোরীকে নানানভাবে হুমকিও দিতে থাকে।

পরে রোববার দুপুরে ভুক্তভোগী কিশোরী জাহাঙ্গীরের সিদ্ধান্ত জানতে তার বাড়িতে গেলে জাহাঙ্গীর লোহার শিকল দিয়ে ওই কিশোরীকে পেটায়। একপর্যায়ে ওই কিশোরী অজ্ঞান হয়ে যায়। জ্ঞান ফেরার পর সে নিজেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দেখতে দেখতে পায়।

প্রত্যক্ষদর্শী জিনারদী ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের স্থানীয় ইউপি সদস্য সোহেল মিয়া জানান, ঘোড়াশাল পৌর এলাকার খানেপুর গ্রামের ও জিনারদী ইউনিয়নের গাবতলী গ্রামের সীমান্ত এলাকার একটি নির্জন স্থানে অজ্ঞাত ও অজ্ঞান অবস্থায় ওই কিশোরীকে এলাকাবাসী দেখতে পেয়ে আমাকে খবর দেয়। পরে আমি দ্রুত ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মেয়েটিকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করি। পরে পুলিশে খবর দেয়া হয় এবং মেয়েটিকে উদ্ধার করে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসক তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর মেয়েটির জ্ঞান ফিরলে তার পরিচয় জেনে পরিবারের সদস্যদের খবর দেয়া হয়।

এ বিষয়ে পলাশ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম জানান, খবর পাওয়া মাত্রই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। পাশাপাশি মেয়ের পরিবারকে থানায় অভিযোগ দেয়ার কথা বলা হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরো সংবাদ

Recent Comments

No comments to show.