fbpx
শিরোনাম:
নবীনগরে শিল্পপতি রিপন মুন্সির স্বপ্নের ফার্মে ঘুরে দাঁড়ালো ৫০০ অসহায় পরিবার নবীনগরে বিএনপির অপপ্রচার ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্পৃতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত। নবীনগরে ব্যারিষ্টার জাকির আহাম্মদ কলেজে জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের সংবর্ধনা ও পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত। বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেবে রাশিয়া বিয়ের পরদিন মেঘনায় ভাসছিল যুবকের মরদেহ প্রেমের টানে এবার জয়পুরহাটে শ্রীলঙ্কান যুবক ইডেনের বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেত্রীরা কৃষিমন্ত্রীর বাসায় এবার গোপনে নয়, আয়োজন করে বিয়ে করবেন শাকিব ৩ স্ত্রী থাকার পরও কিশোরীকে বিয়ের প্রস্তাব, রাজি না হওয়ায় অপহরণ ইভ্যালির সার্ভার খুলছে শিগগিরই, অনলাইনে চালু হবে কেনাবেচা
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৮:০৩ অপরাহ্ন

ধর্ষণে স্কুলছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা, গ্রেফতার ৫

প্রতিনিধির / ১৬১ বার
আপডেট : বুধবার, ২৪ আগস্ট, ২০২২
ধর্ষণে স্কুলছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা, গ্রেফতার ৫
ধর্ষণে স্কুলছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা, গ্রেফতার ৫

ফরিদপুর ধর্ষণের শিকার হয়ে এক কিশোরী (১৩) অন্তঃসত্ত্বা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় মামলা করেছে ভুক্তভোগীর পরিবার। ওই কিশোরী স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী। ফরিদপুর সদরের নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।
মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) সকালে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন ভুক্তভোগীর মা। এ ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত শেখ সুজনসহ পাঁচ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, অন্তঃসত্ত্বা কিশোরীর গর্ভপাত ঘটানোর চেষ্টা করে সুজনের পরিবারের লোকজন। সালিশ ডেকে ক্ষতিপূরণ দেওয়াসহ বিয়ের উদ্যোগ নেয় স্থানীয় কয়েকজন মাতবর। এরই মধ্যে ঘটনাটি জানাজানি হয়ে যাওয়ায় জেলা প্রশাসন ও পুলিশের সহযোগিতায় কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করা হয়েছে।
কিশোরী বর্তমানে পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। সুজন নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের বাসিন্দা ও পেশায় কাঠমিস্ত্রি। এ মামলায় সুজনসহ ১০ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এর মধ্যে সুজনসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতার অপর চারজন হলেন- আলিম উদ্দীনের ডাঙ্গী গ্রামের ফজল শেখ (৫৫) ও শেখ শামু (৫৮), ইমারত মেম্বারের ডাঙ্গী গ্রামের ফরহাদ পত্তনদার (৫০), তুইজুদ্দি মাতবরের ডাঙ্গী গ্রামের কামাল বেপারি (৫০)।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, সুজনের পরিবার অন্তঃসত্ত্বা কিশোরীর পরিবারকে তিনলাখ টাকা দিয়ে গর্ভপাত ঘটানোর চেষ্টা করে। গত ২১ আগস্ট একটি ভুয়া কাবিননামার মাধ্যমে লোক দেখানো সালিশের আয়োজন করা হয়। সেখানে বিয়ে পরবর্তী ডিভোর্সের ব্যবস্থা রাখা হয়। এ খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঘটনায় জড়িত কয়েকজনকে থানায় নেয়। একইসঙ্গে কিশোরীকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সুজনকে গ্রেফতার করা হয়।
নর্থ চ্যানেল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোস্তাকুজ্জামান বলেন, সালিশ ডাকার পর ধর্ষণের ঘটনাটি জানতে পারি। পরে স্থানীয় মাতবরদের সালিশ থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছি। সেইসঙ্গে কিশোরীর পরিবারকে আইনের আশ্রয় নিতে বলেছি।

ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম এ জলিল বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। মামলার পর অভিযুক্ত সুজন ও ঘটনাটি যারা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেছিল তাদের চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কিশোরীকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গ্রেফতার পাঁচজনকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরো সংবাদ

Recent Comments

No comments to show.