শিরোনাম:
নবীনগরে শিল্পপতি রিপন মুন্সির স্বপ্নের ফার্মে ঘুরে দাঁড়ালো ৫০০ অসহায় পরিবার নবীনগরে বিএনপির অপপ্রচার ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্পৃতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত। নবীনগরে ব্যারিষ্টার জাকির আহাম্মদ কলেজে জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের সংবর্ধনা ও পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত। বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেবে রাশিয়া বিয়ের পরদিন মেঘনায় ভাসছিল যুবকের মরদেহ প্রেমের টানে এবার জয়পুরহাটে শ্রীলঙ্কান যুবক ইডেনের বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেত্রীরা কৃষিমন্ত্রীর বাসায় এবার গোপনে নয়, আয়োজন করে বিয়ে করবেন শাকিব ৩ স্ত্রী থাকার পরও কিশোরীকে বিয়ের প্রস্তাব, রাজি না হওয়ায় অপহরণ ইভ্যালির সার্ভার খুলছে শিগগিরই, অনলাইনে চালু হবে কেনাবেচা
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৭:৩২ অপরাহ্ন

চার বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে মালয়েশিয়ায় শ্রমিক নিয়োগ

প্রতিনিধির / ১৭৯ বার
আপডেট : মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট, ২০২২
চার বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে মালয়েশিয়ায় শ্রমিক নিয়োগ
চার বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে মালয়েশিয়ায় শ্রমিক নিয়োগ

বাংলাদেশ হাইকমিশন তথা বাংলাদেশ সরকারের নিবিড় কূটনৈতিক প্রচেষ্টার ফলে অবশেষে  দীর্ঘ ৪ বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় নতুন শ্রমিক নিয়োগ শুরু হয়েছে।
মঙ্গলবার (০৯ আগস্ট) ভোর ৫টা ২২ মিনিটে বাংলাদেশ থেকে ৫৩ জন কর্মী নিয়ে এয়ার এশিয়ার একটি ফ্লাইট কুয়ালালামপুর বিমানবন্দরে অবতরণ করে। মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার জনাব গোলাম সারোয়ার বিমানবন্দরে উপস্থিত থেকে তাদের স্বাগত জানান। এই সময়ে হাইকমিশনের শ্রম উইংয়ের মিনিস্টার নাজমুস সাদাত সেলিমসহ মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও দুই দেশের সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

মালয়েশিয়ার জিমাত জায়া নামক একটি খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ শিল্পে উক্ত কর্মীরা নিয়োগ লাভ করেছেন। মালয়েশিয়ার সরকারের নতুন বেতন কাঠোমো অনুযায়ী তারা প্রতি মাসে অন্তত ১ হাজার ৫০০ মালয়েশিয়ান রিংগিত অর্থাৎ বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩৭ হাজার টাকা বেতন পাবেন। তা ছাড়া তারা মালয়েশিয়ার আইন অনুযায়ী প্রযোজ্য ক্ষেত্রে ওভারটাইম, বিনামূল্যে বাসস্থান, স্বাস্থ্যবিমা, কর্মস্থলে দুর্ঘটনাজনিত বিমাসহ অন্যান্য সব সুবিধা প্রাপ্য হবেন।

আগামী কয়েক দিনে জিমাত জায়াসহ মালয়েশিয়ার অন্যান্য কোম্পানিতে কাজের জন্য আরও কয়েকশ বাংলাদেশি কর্মীর ফ্লাইট নির্ধারিত হয়েছে। এর মাধ্যমে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারে এত দিনের বাধা দূর হতে যাচ্ছে বলে মনে করেন শ্রমবাজার সংশ্লিষ্টরা।
বাংলাদেশের প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়, এ বছরের এপ্রিলে জিমাত জায়া কোম্পানির এই কর্মীদের প্রাথমিক অনুমতি দেয়া হয়েছে। একই দিন জিমাত জায়া কোম্পানিতে ১১০ জন এবং রেইনবো পেপার সাপ্লাই কোম্পানিতে ১৫ জনসহ মোট ১২৫ কর্মীর অনুমোদন দেয়া হয়।

বাংলাদেশ হাইকমিশনের কাউন্সেলর (লেবার) মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম বলেন, মালয়েশিয়ার বিভিন্ন খাতে প্রচুর বাংলাদেশি কর্মীর চাহিদা রয়েছে। এরই মধ্যে প্রায় ৪০০ কোম্পানি বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগের জন্য আবেদন জানিয়েছে। আমরা দ্রুত যাচাই-বাছাই শেষে কর্মী নিয়োগের সত্যায়ন দিচ্ছি। এসব কর্মী দ্রুতই বাংলাদেশ থেকে আসবেন।

২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে মালয়েশিয়ায় কর্মী নিয়োগ বন্ধ হয়। এরপর ২০২১ সালের ১৯ ডিসেম্বর মালয়েশিয়ার সঙ্গে কর্মী নিয়োগে নতুন সমঝোতা চুক্তি করে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়। সেই চুক্তির আওতায় কর্মী পাঠানো শুরু হলো।
দীর্ঘ চার বছরের অচলাবস্থা ভেঙে মালয়েশিয়ায় নতুন করে বাংলাদেশি কর্মী নিয়োগ শুরু হওয়াতে হাইকমিশনার গোলাম সারোয়ার সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন এবং বাংলাদেশে ও মালয়েশিয়ার সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন। আশা করা হচ্ছে, আগামী তিন বছরের মধ্যে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশের প্রায় ৫ লক্ষাধিক নতুন লোকের কর্মসংস্থান হবে এবং এর মাধ্যমে মালয়েশিয়া থেকে বাংলাদেশের প্রেরিত মোট রেমিট্যান্স তিন বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করবে।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ মালয়েশিয়া তাদের শ্রম চাহিদা পূরণের জন্য স্থানীয়দের পাশাপাশি বাংলাদেশসহ বিদেশি কর্মীদের ওপর নির্ভর করে থাকে। কিন্তু গত ৩ বছর মহামারির কারণে নতুন করে বিদেশি কর্মী নিয়োগ স্থগিত থাকায় দেশটিতে চরম শ্রমিক সংকট তৈরি হয়।

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরো সংবাদ

Recent Comments

No comments to show.