fbpx
শিরোনাম:
নবীনগরে শিল্পপতি রিপন মুন্সির স্বপ্নের ফার্মে ঘুরে দাঁড়ালো ৫০০ অসহায় পরিবার নবীনগরে বিএনপির অপপ্রচার ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্পৃতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত। নবীনগরে ব্যারিষ্টার জাকির আহাম্মদ কলেজে জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের সংবর্ধনা ও পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত। বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেবে রাশিয়া বিয়ের পরদিন মেঘনায় ভাসছিল যুবকের মরদেহ প্রেমের টানে এবার জয়পুরহাটে শ্রীলঙ্কান যুবক ইডেনের বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেত্রীরা কৃষিমন্ত্রীর বাসায় এবার গোপনে নয়, আয়োজন করে বিয়ে করবেন শাকিব ৩ স্ত্রী থাকার পরও কিশোরীকে বিয়ের প্রস্তাব, রাজি না হওয়ায় অপহরণ ইভ্যালির সার্ভার খুলছে শিগগিরই, অনলাইনে চালু হবে কেনাবেচা
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৮:১০ অপরাহ্ন

গোপনে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বিয়ে, চাকরি হারালেন শিক্ষক

প্রতিনিধির / ১৩৪ বার
আপডেট : শনিবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২
গোপনে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বিয়ে, চাকরি হারালেন শিক্ষক
গোপনে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে বিয়ে, চাকরি হারালেন শিক্ষক

ফেনীর সোনাগাজীতে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে গোপনে বিয়ে করার অভিযোগে স্কুল থেকে এক শিক্ষককে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (০১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ বৈঠক করে তাকে অব্যাহতি দেয়। অভিযুক্ত শিক্ষকের নাম শেখ ফরিদ রনি। তিনি আল হেলাল অ্যাকাডেমির খণ্ডকালীন শিক্ষক ও স্থানীয় ছাত্রশিবির নেতা।

আল হেলাল অ্যাকাডেমির প্রধান শিক্ষক উপজেলা জামায়াত নেতা ওমর ফারুক বলেন, অভিযোগের সত্যতা পেয়ে পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি সামছুল হকের নির্দেশক্রমে তাকে শ্রেণি কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির প্রতিবেদন পেলে পরে পরিচালনা পর্ষদ তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

অভিযুক্ত শিক্ষক শেখ ফরিদ রনি দাবি করে বলেন, পারিবারিকভাবে আকদ হয়েছে, তবে বিয়ে হয়নি। অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছাত্রীকে বিয়ে করার জন্য আকদ করা যায় কিনা এ প্রশ্নের জবাবে সরাসরি ‘না’ উল্লেখ করে তিনি দাবি করেন, ‘কয়েকজন শিক্ষকের সঙ্গে মনোমালিন্য থাকায় তারা বিষয়টি বাজেভাবে উপস্থাপন করে চারদিকে ছড়িয়েছে। তাছাড়া রাজনৈতিক কারণেও আমাকে ফেসবুকে ভাইরাল করা হয়েছে।’

জানা গেছে, প্রায় ৭-৮ মাস আগে স্থানীয় ছাত্রশিবির নেতা শেখ ফরিদ রনি আল হেলাল অ্যাকাডেমিতে খণ্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। পড়ালেখার পাশাপাশি তিনি নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলেন। বিষয়টি জানাজানি হলে ছাত্রীর পরিবার গোপনে বিয়ে দিতে সম্মত হয়। এক পর্যায়ে তাদের বিয়ে হয়।

ছাত্রীর বয়স কম হওয়ায় তার পরিবার বিয়ের বিষয়টি গোপন রাখেন। জানাজানি হলে বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হন। বিষয়টি ফেসবুকে ভাইরালও হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার বিকেলে বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ ছাত্রীর পরিবার ও অভিযুক্ত শিক্ষককে ডাকেন। বিষয়টির প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে শিক্ষককে বহিষ্কার করা হয়।

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরো সংবাদ

Recent Comments

No comments to show.