fbpx
শিরোনাম:
নবীনগরে শিল্পপতি রিপন মুন্সির স্বপ্নের ফার্মে ঘুরে দাঁড়ালো ৫০০ অসহায় পরিবার নবীনগরে বিএনপির অপপ্রচার ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্পৃতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত। নবীনগরে ব্যারিষ্টার জাকির আহাম্মদ কলেজে জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের সংবর্ধনা ও পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত। বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেবে রাশিয়া বিয়ের পরদিন মেঘনায় ভাসছিল যুবকের মরদেহ প্রেমের টানে এবার জয়পুরহাটে শ্রীলঙ্কান যুবক ইডেনের বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেত্রীরা কৃষিমন্ত্রীর বাসায় এবার গোপনে নয়, আয়োজন করে বিয়ে করবেন শাকিব ৩ স্ত্রী থাকার পরও কিশোরীকে বিয়ের প্রস্তাব, রাজি না হওয়ায় অপহরণ ইভ্যালির সার্ভার খুলছে শিগগিরই, অনলাইনে চালু হবে কেনাবেচা
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৮:১৫ অপরাহ্ন

আয়ুর্বেদিকের আড়ালে মাদক-যৌন উত্তেজক সিরাপ

প্রতিনিধির / ১৫০ বার
আপডেট : বুধবার, ২৪ আগস্ট, ২০২২
আয়ুর্বেদিকের আড়ালে মাদক-যৌন উত্তেজক সিরাপ
আয়ুর্বেদিকের আড়ালে মাদক-যৌন উত্তেজক সিরাপ

রাজধানীর নারিন্দায় মাদকদ্রব্য ও যৌন উত্তেজক সিরাপ তৈরির কারখানায় অভিযান চালিয়ে ছয় ব্যক্তিকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) রাত সাড়ে ১০টা থেকে ”নারিন্দার ফকিরচান সর্দার কমিউনিটি” সেন্টারসংলগ্ন একটি বাড়িতে ”অভিযান চালিয়ে এদের আটক করা হয়।”
পরে রাত পৌনে ১টায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ তথ্য জানান র‍্যাব সদর দফতরের আইন ও গণমাধ্যম শাখা পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, বাড়িটিতে বিপুল পরিমাণ মাদকদব্য আছে এমন গোপন খবরের ভিত্তিতে র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে বাড়িটিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় সেখান থেকে ছয়জনকে আটক করার পাশাপাশি ৩ হাজার ৫০০ বোতল বিভিন্ন প্রকার মাদক মিশ্রিত পানীয় জব্দ করা হয়।

আটক ব্যক্তিরা হলেনঃ মো. ওয়াজেদ ইসলাম শান্ত (২০), মো. রাসেল (২৯), মো. হৃদয় (২৯), ”মো.মুরসালিন-আহম্মেদ ”(১৮), সবুজ মিয়া (১৮) ও মো. নান্টু (৫২)।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, ‘সম্প্রতি কিছু অভিভাবক র‌্যাব-২-এর অফিসে এসে জানান, তাদের সন্তানরা কামরাঙ্গীরচরের একটি দোকান থেকে আয়ুর্বেদিক ওষুধের মতো কিছু একটা কিনে পান করছে, যার পরবর্তীতে তারা মাদকসেবীদের মতো আচরণ করছে। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা কামরাঙ্গীরচরে কথিত ওই আয়ুর্বেদিকের দোকানে যাই এবং ক্রেতা সেজে কয়েক বোতল ওষুধ জোগাড় করি। পরে সেটি পরীক্ষার জন্য ল্যাবরেটরিতে পাঠাই। পরীক্ষার পর রিপোর্ট আসে যে, সেটি আসলে মাদক ও যৌন উত্তেজক মিশ্রিত পানীয় বা সিরাপ।
তিনি আরও বলেন, ‘এই পানীয়ের মধ্যে গাঁজা, ইয়াবা, ডান্ডি তৈরিতে ব্যবহৃত টলুইন নামক ‘ক’ শ্রেণির মাদকের উপস্থিতি পাওয়া যায়। এছাড়া তীব্র ঘুমের ওষুধ ও যৌন উত্তেজনা বাড়ানোর বিভিন্ন উপকরণ, অ্যাসিড জাতীয় দ্রব্যাদিসহ বিভিন্ন দাহ্য পদার্থের উপস্থিতি পাওয়া যায়, যা পান করলে কিডনি রোগসহ নানা রকম জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। পরে আমরা কামরাঙ্গীরচরের সেই দোকানে অভিযান চালাই এবং কয়েকজনকে আটক করি। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে এ জায়গার খোঁজ জানতে পারি। পরে আমরা এ বাড়িটিতে অভিযান চালিয়ে ছয়জনকে আটক করি।’

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, বাড়িটি থেকে আটক ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসাবাদে প্রাথমিকভাবে জানা যায় যে, তারা ফার্মেসির নামে লাইসেন্স নিয়ে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে আয়ুর্বেদিক ওষুধ বিক্রির আড়ালে মাদক ও যৌন উত্তেজক দ্রব্যাদি মিশ্রিত পানীয় প্রস্তুত ও বিক্রি করে আসছিলেন। যার প্রধান ক্রেতা যুবকরা।’

তিনি বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি, মাদক মিশ্রিত এই পানীয়ের প্রতিটি বোতল ১৬০ থেকে ১৮০ টাকায় বিক্রি হতো। বড় বোতলগুলো বিক্রি হতো ২০০ টাকায়। গত দুই-তিন বছর ধরে তারা ঢাকার কয়েকটি আউটলেটের মাধ্যমে এসব বিক্রি করে আসছিল। কম দামে নেশাজাতীয় দ্রব্যাদির উপস্থিতি থাকায় তরুণ সমাজের মধ্যে পানীয়টির চাহিদা বাড়ে। তাই তারা এগুলো তৈরি ও বিক্রি করে আসছিলেন।’

আটক ব্যক্তিদের ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলেও জানান কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরো সংবাদ

Recent Comments

No comments to show.